সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০১:৫১ পূর্বাহ্ন

বাইডেনের চোখ হচ্ছে ‘গনতন্ত্রের টার্নিং পয়েন্ট।’

মো: শফিকুল আলম
  • Update Time : বুধবার, ৩ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৬১ Time View

জো বাইডেন গত বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ সামিট ফর ডেমোক্র্যাসি বা গনতন্ত্রের সম্মেলনে বিশ্ব গনতন্ত্রের দিকে ধাবিত হোক এবং এই সামিট টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে এই প্রত্যাশায় ১ বিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলারের সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। চায়না এবং রাশিয়ার গনতন্ত্রের ধারাকে পিছিয়ে দেয়ার অব্যাহত প্রচেষ্টার ব্যাপারেও তিনি তাঁর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। দ্বিতীয় বারের মতো ১২১ টি দেশের এই বড় সম্মেলনের আয়োজোক প্রেসিডেন্ট বাইডেন ভার্চুয়াললি সবার সাথে সংযুক্ত হয়েছিলেন। এই সামিটে তিনি একই মানসিকতার দেশগুলোকে একটি ঐক্য প্রতিষ্ঠার ঘোষনা ব্যক্ত করেন এবং সেটা হচ্ছে প্রযুক্তির ব্যবহারে বিধির প্রনয়ন এবং বিধি অনুসরনের। কারন, চায়না প্রযুক্তিগতভাবে সমৃদ্ধি অর্জনের সাথে সাথে প্রযুক্তিকে পৃথিবীর স্বার্থ বিঘ্নিত করে তাদের হীন স্বার্থে ব্যবহার করছে।

জো বাইডেন এই বিশাল একত্রীকরনকে বিশ্বর অধিকতর স্বাধীনতা, অধিকতর মর্যাদা প্রতিষ্ঠা এবং গনতন্ত্র সংহত করার ‘টার্নিং পয়েন্ট’ হিসেবে প্রশংসা করেন।

জো বাইডেন বলেন, “আমি বিশ্বাস করি গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এই সময়ে একটি বড় চ্যালেজ্ঞ হলেও আজকের এই সম্মেলন গর্বের সাথে উচ্চারন করতে পারে যে গনতন্ত্র অধিকতর শক্তিধর হচ্ছে। পক্ষান্তরে স্বৈরতন্ত্র দুর্বল থেকে দুর্বলতর হচ্ছে।”
যদিও জো বাইডেনের এই আশাবাদ সর্বশেষ প্রকাশিত সুইডেন-বেইজড V-Dem ইনস্টিটিউট এর রিপোর্টের বিপরীতে যায়। এই রিপোর্ট বলছে গত ৩৫ বছরে বরং পৃথিবীর গনতন্ত্র উবে যাচ্ছিলো।

ইউএন সেক্রেটারী জেনারেল Antonio Guterres বললেন পৃথিবী এক নাটকীয় উত্থানের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলো যেখানে ডেমোক্র্যাটিক ভ্যালুস নিগৃহীত ছিলো। তিনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মিডিয়ার ওপর বিধিনিষেধ আরোপ এবং মানবাধিকার লংঘনের উদাহরন টেনে বক্তব্য রাখেন।
বিভিন্ন দেশে গনতন্ত্র সম্প্রসারনে জো বাইডেনের অস্ট্রেলিয়ান ১ বিলিয়ন যা’ ইউএস ডলারে ৬৯০ মিলিয়ন এর সম পরিমান অর্থ বরাদ্দের ঘোষনা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ এবং অনুপ্রেরনামূলক। ২০২১ এ প্রথম সম্মেলনে এই বরাদ্দের পরিমান ছিলো ৪২৪ মিলিয়ন ইউএস ডলার। বিভিন্ন দেশে অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠান, দুর্নীতি দমন এবং গনমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরনে এই অর্থ ব্যয়িত হবে।

২০২১ এ অনুষ্ঠিত প্রথম ডেমোক্র্যাটিক সামিট বেশ ইউএস কেন্দ্রিক ছিলো বলে বেশ সমালোচনা ছিলো। সমালোচনার পৃষ্ঠা উল্টানোর জন্য এবছর জো বাইডেন সব কন্টিনেন্ট থেকে কো-হোস্ট নিয়েছিলেন। যেমন, সাউথ কোরিয়া, জান্বিয়া, কোস্টারিকা, নেদারল্যান্ডস ইত্যাদি।
সাউথ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক-ইওল বলেন, “ গনতন্ত্রের পূনরোদ্ধারে আমরা নতুনভাবে যাত্রা শুরু করেছি যা’ বর্তমান সময়ে হুমকিতে রয়েছে।”
সাউথ কোরিয়ান প্রেসিডেন্ট পরবর্তী বা তৃতীয় সামিট তাদের দেশে অনুষ্ঠানের ঘোষনা দিয়েছেলে।
ইউএস তাইওয়ানকে ডেমোক্র্যাটিক সামিটে অন্যতম ভূমিকা রাখার সুযোগ দিয়েছে। চায়না অবশ্য তাইওয়ানকে তাদের দেশের অংশ মনে করে এবং সেখানে আত্মনিয়ন্ত্রিত গনতন্ত্র রয়েছে বলে চায়না বলে থাকে। ইউএস বা ইউক্রেন অবশ্য তার স্বীকৃতি দেয়না।
ইউক্রেনিয়ান প্রেসিডেন্ট বলেন গনতন্ত্রের বিরুদ্ধে রাশিয়ার যে হুমকি রয়েছে সেখানে সকল গনতন্ত্রকামী দেশের সামনে রয়েছে ইউক্রেন। ইউক্রেনই সবার পক্ষে রাশিয়ার হুমকি মোকাবেলা করছে। তিনি বলেন যে শয়তানের ধোকা থেকে আমাদের সাবধান হতে হবে। শয়তানের সাথে সমঝোতা করে গনতন্ত্র এবং স্বাধীনতা নিশ্চিত করা যাবেনা। গনতন্ত্রের শত্রু অবশ্যই পরাজিত হবে এবং তখনই কেবল গনতন্ত্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

ইন্ডিয়ান প্রাইম মিনিস্টার নরেন্দ্রমোদিকে প্রেসিডেন্ট বাইডেন বেশ উচ্ছসিত প্রশংসার সাথে উপস্থাপন করে অগনতান্ত্রিক এবং স্বৈরাচারী চায়নার বিরুদ্ধে একটি শক্ত দেয়াল বলে পরিচয় করিয়ে দেন।
মিঃ মোদি ইন্ডিয়াকে ‘মাদার অব ডেমোক্র্যাসি’ বলে অভিহিত করলেন।
মোদি প্রাচীন সাংস্কৃট এপিক উল্লেখ করে মাদার অব ডেমোক্র্যাসি শিরোনামটির ব্যাখ্যা করেন। তিনি মহাভারত উল্লেখ করে বলেন কিভাবে কনসাল্টেশন করে পাওয়ার ব্যবহার করতে হয় সেকথা প্রাচীন মহাভারতে লেখা রয়েছে। মোদি আরও বলেন ডেমোক্র্যাসি শুধু একটা কাঠামো নয়; এটি একটি স্পিরিট – যখন মোদি সরকারের বিরুদ্ধেও গনমাধ্যম নিয়ন্ত্রনের অভিযোগ তীব্রতর হচ্ছে।

বেশকিছু দেশের নেতৃত্বের রেকর্ড উদ্বেগজনক বিধায় এই গনতন্ত্র সম্মেলনে বাইডেন তাদেরকে আমন্ত্রণ জানাননি। তাদের মধ্যে রয়েছেন টার্কিশ প্রেসিডেন্ট এরদোগান যিনি প্রায় দু’দশক ক্ষমতায় রয়েছেন । ইইউভুক্ত একটি দেশ। মে মাসে অবশ্য তাকে নির্বাচন ফেইস করতে হচ্ছে।
হাঙ্গেরীর প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওরবান যিনি লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক ভ্যালুর তীব্র সমালোচক তিনি সামিটে ইনভাইটেশন পাননি। নিমন্ত্রণ পাননি ইউএস এর ঘনিষ্ট ট্রেইড পার্টনার বাংলাদেশ, সিংগাপুর এবং থাইল্যান্ড।

চায়না দীর্ঘদিনের ইউএস-লেড লিবারেল ইন্টারন্যাশনাল অর্ডারের বিপরীতে। রাশিয়া অবশ্য গনতন্ত্র সামিটকে হিপোক্রিটিকাল বলে অভিহিত করেছে। চাইনিজ ফরেন মিনিস্ট্রি’র স্পোকসম্যান মাও নিং বলেন এই সম্মেলন বরং সংঘর্ষ উথলে দিবে। তার মতে এটা গনতন্ত্রের বদলে বিভেদ তৈরী করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category